এগিয়ে যাচ্ছে লিডসাস

বেনজির আবরার, আমার ক্যাম্পাস: সমসাময়িক বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে শিক্ষাপ্রতিষ্টানে নিরাপত্তা একটি গুরুত্বপূর্ন বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে সাম্প্রতিক সময়ে। এসময়টিতেই বাংলাদেশী তরুণ উদ্দ্যোক্তা সাদিক আল সরকার ২০১৫ তে যেটি এনেছিলেন, সেই লিডসাস প্রকল্পের ব্যাবহার বেড়েই চলেছে। নাম শুনে যারা ভেবে বসলেন ছোট কোনো প্রকল্প তাদের জন্য থাকছে চমক! লিডসাস টিম দেশের বিভিন্ন নামকরা শিক্ষাপ্রতিষ্টানে দিচ্ছে তাদের সেবা,লিডসাসের প্রকল্পের আওতায় নিরাপদ থাকছে শিক্ষার্থীরা। এবিষয়ে কথা বলতে আমরা মুখোমুখি হই সাক্ষাৎকার পর্বে লিডসাসের চিফ অপারেটিং অফিসার সাঈদ সারোয়ার সাদীর সঙ্গে– সম্পূর্ণ সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন বেনজির আবরার। পাঠকের জন্য তা তুলে ধরা হলো।

প্রশ্ন – “লিডসাস” প্রতিষ্টার কারন??

সাঈদ সারোয়ার সাদী – “বাংলাদেশে বহুসংখ্যক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এখনো আধুনিকায়নের ছোঁয়া লাগেনি। এতে ছাত্রছাত্রীদের নিরাপত্তা যেমন বিঘ্নিত হচ্ছে, ঠিক তেমনি সেকেলে ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি বহাল থাকায় মূল্যবান সময়ের অপচয় হচ্ছে। তাই উন্নত বিশ্বের মতো এদেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে আধুনিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে রূপান্তর করার জন্য প্রয়োজন কার্যকরী পরিকল্পনা ও সময়োপযোগী উদ্যোগ।”একারণেই আমরা ব্যাতিক্রমী এ উদ্দ্যোগ নিয়ে এসেছি।

প্রশ্ন – প্রকল্পটি সম্পর্কে বলুন –

সাঈদ সারোয়ার সাদী – ২০১৫-এর প্রথম দিকের কথা, সাদিক লক্ষ করলেন, শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা বা স্কুল ডিজিটালাইজেশন নিয়ে বাংলাদেশের কোনো প্রতিষ্ঠান পূর্ণাঙ্গ কাজ করছে না। এরপর তিনি দেশে ও দেশের বাইরে বিভিন্ন আইটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কথা বলে জানতে পারেন যে, তিনি যে সার্ভিসগুলো চাচ্ছেন, তা কেউই একসঙ্গে দিচ্ছে না। পরবর্তীতে সাদিক নিজেই একটি পরিকল্পনা সাজান। কী কী সার্ভিস থাকলে কমপ্লিট ডিজিটাল স্কুল, তথা আধুনিক বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলা একটি স্কুল গড়া সম্ভব হয়, তা তিনি তালিকাভুক্ত করতে থাকেন।

‘একবিংশ শতাব্দীতে বাংলাদেশ ডিজিটাল যুগে প্রবেশ করলেও কিছু প্রতিবন্ধকতা আমাদের মাথা উঁচু করে দাঁড়ানোর পথে অন্তরায় হয়ে ওঠে। বিভিন্ন অপরাধ চক্রের সক্রিয়তা, ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অনিয়মিত থাকাসহ আরও নানা সমস্যা আমাদের সমাজে এখনো বিষফোঁড়ার মতোই অবস্থান করছে। একা কখনোই কারো পক্ষে এ সমস্যাগুলো মোকাবিলা করা সম্ভব না। তিনি জানান, তাই টিম লিডসাস একটি কমপ্লিট কনসেপ্ট নিয়ে এগিয়ে যেতে সম্মত হলো, যেখানে আধুনিক নিরাপত্তাব্যবস্থার পাশাপাশি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর সম্পূর্ণ আধুনিকায়ন সম্ভব হবে। এভাবেই মূলত লিডসাস লিমিটেডের যাত্রা শুরু।

প্রশ্ন -সেক্টরটির সম্ভাবনা কেমন দেখছেন?

সাঈদ সারোয়ার সাদী – ‘‘বাংলাদেশে শিক্ষাঙ্গনের নিরাপত্তার পাশাপাশি আধুনিকায়নের ধারণাটি নতুন না হলেও সঠিক পরিকল্পনা ও সময়োপযোগী উদ্যোগ গ্রহণে সচেষ্ট না হওয়ায় বহু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এখনো কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে ব্যর্থ। টিম লিডসাস ডিজিটালাইজেশনের সার্বিক সুবিধাগুলো প্রোগ্রাম কাউন্সেলিং ক্যাম্পেইন – এর মাধ্যমে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর পরিচালনা কমিটির ভেতর সচেতনতা তৈরি করতে কাজ করে যাচ্ছে।’’ যেহেতু, শিক্ষার্থীগণ দেশের ভবিষ্যতের কর্ণধার, সেহেতু তাদের নিরাপত্তাকে সর্বাধিক প্রাধান্য দেওয়া উচিৎ, সেক্টরটির বিকাশও ঘঠবে এক্ষেত্রে।

প্রশ্ন- সাড়া পাচ্ছেন কেমন?

সাঈদ সারোয়ার সাদী – ভিন্নধর্মী চিন্তা থেকে সফল হবার এক অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত লিডসাস। প্রতিষ্টানটির ভাগ্যে মিলেছেও স্বীকৃতি। ব্যাতিক্রমী চিন্তাভাবনাটির জন্য দেশের মূলধারার বেশকয়েকটি দৈনিক আমাদের সাক্ষাৎকার প্রকাশ করেছিলো লিডসাসের জন্মলগ্নে, বিশ্বাস করি যখন আমাদের কাজ বাড়বে তখন তার কাজের স্বীকৃতি আরো বাড়বে যখন প্রত্যেকটি শিক্ষাপ্রতিষ্টানে ছড়িয়ে যাবে “লিডসাস”।

প্রশ্ন- নিজেদের শক্তির জায়গাগুলো বলুন-

সাঈদ সারোয়ার সাদী – লিডসাসের গবেষনা টিমের জরিপে দেখা গেছে, অনেকেই স্ব-স্ব প্রতিষ্ঠানের আধুনিকায়নে আগ্রহী। আরও উঠে এসেছে যে, সঠিক পরিকল্পনা ও যথাযথ রক্ষণাবেক্ষণ ব্যবস্থা না থাকায় যৌথ মালিকানাধীন কিংবা বড় পরিসরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর আধুনিকায়ন দুরূহ হয়ে পড়েছে। এক্ষেত্রে সেসব প্রতিষ্ঠানগুলো ইচ্ছে করলেই টিম লিডসাসের বিশ্বমানের আইসিটি পরিসেবা গ্রহণ করতে পারে। গ্রাহকদের মতামতকে সর্বোচ্চ প্রাধান্য দিয়ে লিডসাসের বিশ্বমানের আইসিটি টিম ইন্টারনেট প্রটোকল সমর্থিত আধুনিক সিসি ক্যামেরা থেকে শুরু করে মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম, ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার, ওয়েব বেইজড মার্কেটিং, বায়োমেট্রিক অ্যাটেন্ডেন্স সিস্টেমসহ সব ধরনের আধুনিক আইসিটি পরিসেবা প্রদানে বদ্ধপরিকর।লিডসাস এর বিশ্বমানের আইসিটি সাপোট প্রসঙ্গে রাজধানী ঢাকাস্থ প্রসিদ্ধ বিদ্যাপীঠ ব্রিটিশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজ এর অধ্যক্ষ জনাব নাজির আহমদ বলেন- ”যথাযথ নিরাপত্তাব্যবস্থা সুনিশ্চিত করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে সম্পূণরূপে আধুনিকীকরণে টিম লিডসাসের উদ্যোগ নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়। একইসাথে একাধিক আইটি পরিসেবা গ্রহণ ও রক্ষণাবেক্ষণের ঝক্কিঝামেলা এখন আর নেই বললেই চলে।’ আর নারায়নগন্জের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে আধুনিক নিরাপত্তা পদ্ধতি ও সফটওয়্যারকেন্দ্রিক ব্যবস্থাপনা আমাদের দেশের জন্য অনেকটাই নতুন। অল্প কিছু সংখ্যক প্রতিষ্ঠান ব্যক্তিগত উদ্যোগে এসব পদ্ধতি ব্যবহার করছেন আর আমাদের প্রতিষ্টানটিও লিডসাসের মাধ্যমেই নিরাপত্তায় ঢাকা বলে জানালেন নারায়ণগঞ্জের অন্যতম স্কুল চেরিশ বিদ্যানিকেতনের অধ্যক্ষ মোরশেদা হাসিনা।

প্রশ্ন – স্বপ্নের রেখা কতদূর বিস্তৃত-

সাঈদ সারোয়ার সাদী- সবচেয়ে মজার বিষয় হচ্ছে, লিডসাস নিরাপত্তার পাশাপাশি রক্ষনাবেক্ষনের জন্যও আলাদা চিন্তা নিয়ে এগুচ্ছে।টিম লিডসাসের অন্যতম লক্ষ্য হলো—যথাযথ প্রযুক্তি সহায়তা প্রদান করে উন্নত বিশ্বের মতো এদেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে আধুনিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানগুলোতে উচ্চমানের আধুনিক নিরাপত্তা বলয় তৈরি করা। বাংলাদেশের সর্বস্তরে প্রযুক্তিগত সুবিধা পৌঁছে দিয়ে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে দেশবাসীর পাশে থাকা। আপাতত ছোট লক্ষ্যে এগোচ্ছি, দোয়া চাই দেশবাসীর কাছে।

image missing image missing