ডুয়েট শিক্ষক সমিতির নির্বাচন: সভাপতি রাজু, সম্পাদক ওবায়দুর

আমার ক্যাম্পাস, ডুয়েট: গাজীপুরে ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (ডুয়েট) শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে সভাপতি পদে ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক বিভাগের অধ্যাপক ড. রাজু আহমেদ এবং বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সাধারণ সম্পাদক পদে সহযোগী অধ্যাপক ড. মো. ওবায়দুর রহমান নির্বাচিত হয়েছেন।

বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের কনফারেন্স রুমে শিক্ষক সমিতির ১১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

এ কমিটির অন্যান্য পদের মধ্যে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিতরা হলেন- সহ-সভাপতি অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আবদুল কাদের, যুগ্ম সম্পাদক সহকারী অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম, কোষাধ্যক্ষ প্রভাষক মো. মাজহারুল আলম, সাংস্কৃতিক সম্পাদক প্রভাষক মো. সুমন মিয়া, ক্রীড়া সম্পাদক তন্ময় কুমার পাল, মহিলা সম্পাদক অধ্যাপক ড. মোছা. নাসরিন আখতার নির্বাচিত হন।

এছাড়া সদস্য পদে অধ্যাপক ড. গণেশ চন্দ্র সাহা, অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান চৌধুরী ও সহযোগী অধ্যাপক নাঈম মো. লুৎফুল হক বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

নির্বাচনে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের দায়িত্বে ছিলেন অধ্যাপক ড. মো. নূরুল ইসলাম এবং সহকারী নির্বাচন কমিশনারের দায়িত্বে ছিলেন অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আবুল কাশেম ও সহকারী অধ্যাপক ড. মো. শিবলী আনোয়ার।

নতুন এই কমিটি আগামী এক বছরের জন্য নির্বাচিত হয়েছেন।

পথশিশুদের মুখে হাসি ফোটালো ড্রিম মোমেন্ট

সুশান্ত বসাক,অামার ক্যাম্পাস: ‘ছবি তুলে দিবো আমরা, ঈদে নতুন জামা পাবে পথশিশুরা’ – এমন শিরোনামই বেছে নিয়েছিলো ফটোগ্রাফি প্রতিষ্ঠান ‘ড্রিম মোমেন্ট’। বিষয়টা একটু অপ্রচলিত ও ভিন্ন মনে হলেও ঠিক এরকমই একটি উদ্যোগ নেয় ড্রিম মোমেন্ট। আমরা যেমনটা সবসময় বলে থাকি, যার যার জায়গা থেকে এগিয়ে আসলেই একটি সুন্দর বাংলাদেশ গড়ে তোলা সম্ভব। এরকম এক চিন্তা থেকেই তারা এগিয়ে আসে তাদের ক্যামেরাসহ যাবতীয় সরঞ্জাম নিয়ে ৮, ৯ ও ১০ জুন রমনা পার্কে। তাদের আইডিয়াটা ছিলো এরকম যে, সবসময় তো নিজেদের জন্য, জীবিকার জন্য ছবি তুলেই থাকি। এবার না হয় একটু তাদের জন্যই ছবি তুলি যারা এই সমাজে অবহেলিত, যাদের কাছে ঈদও একটি সাধারণ দিনের মতই। যেই চিন্তা সেই কাজ! ফেসবুকে প্রচারণা শুরু হলো। যে কেউ নিজের ছবি তোলাতে পারবে নির্দিষ্ট দিনে নির্দিষ্ট সময়ের মাঝে যে কোন পরিমাণ টাকার বিনিময়ে, হোক সেটা ১০০ টাকা বা ১০০০ টাকা। যার যেমন সামর্থ্য সে তেমন টাকাই দিবে পথশিশুদের জামা কেনার জন্য। সময়মত ছবিও পেয়ে যাবে ই-মেইলের মাধ্যমে। শুধু যে পরিচিত মানুষরা সাড়া দিয়েছে তা নয়, অনেক অপরিচিত মানুষরাও এসেছে মানবিকতার তাগিদে, ঈদের আনন্দটুকু ভাগ করে দিতে।

ব্যাপারটা সত্যিই অসাধারণ! যে কোন মানুষ যে চাইলেই যে কোন জায়গা থেকে ভালো কাজ করতে পারে, অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়াতে পারে তার এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত ‘ড্রিম মোমেন্ট’ এর এই অভিনব উদ্যোগ। থাকতে হবে শুধু প্রবল ইচ্ছাশক্তি ও ভাল কাজ করার মন-মানসিকতা। তবেই না আমরা গর্ব করে বলতে পারি, আমরা করবো জয় একদিন।

গত ১৫ই জুন, বৃহস্পতিবার ঢাকার পলাশীর মোড়ে ফুটপাতে বসবাসকারী অসহায় ৬০ জন পথশিশুদের মাঝে তারা ঈদ উপলক্ষে নতুন জামা বিতরণ করে। ড্রিম মোমেন্ট টিমের সবাই মিলে এই সম্পূর্ণ ক্যাম্পেইনটি পরিচালনা করে।

ড্রিম মোমেন্ট এর প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান ফটোগ্রাফার সৈয়দ মেহেদী হাসান বলেন, আমরা যখন এই ক্যাম্পেইনটি পরিকল্পনা করি তখন ভেবেছিলাম হয়তো ৩০ জন পথশিশুকে আমরা নতুন জামা দিতে পারবো, হয়তো মানুষ তাদের মূল্যবান সময় নষ্ট করে আসতে চাইবে না কিন্তু আমাদের ধারণা সম্পূর্ণ ভুল প্রমাণিত হয়েছে। মানুষের এই স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে আমরা সত্যিই অনুপ্রাণিত। আর একইসাথে পরিকল্পনার চেয়ে দ্বিগুণ সংখ্যক পথশিশুদের নতুন জামা দিতে পেরে আমরাও আনন্দিত। যেন এটাই আমাদের ঈদের খুশি।

তারা বিশ্বাস রাখে এভাবেই তারা সামনের দিনগুলোতে আরো বেশি সংখ্যক মানুষের পাশে দাঁড়াতে পারবে, অসহায় মানুষদের মুখে হাসি ফোটাতে পারবে। এরকম আত্মবিশ্বাস নিয়েই তারা এই দেশটাকে বদলানোর প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখতে চান। এভাবেই যদি প্রত্যেকে যার যার অবস্থান থেকে মানুষের জন্য এগিয়ে আসে তবেই মানুষের মধ্যকার বৈষম্য দূর হয়ে একটা সোনার বাংলাদেশ গড়ে ওঠবে।

ভালোবাসায় সিক্ত বিশ্বসেরা হাফেজ ত্বরিকুল

আমার ক্যাম্পাস রিপোর্ট: দুবাইয়ে ২১তম আন্তর্জাতিক হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের হাফেজ ত্বরিকুল ইসলাম বিশ্বসেরা নির্বাচিত হয়েছেন। বিশ্বের ১০৪টি রাষ্ট্র এ প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়।

পবিত্র মাহে রমজানের প্রথম দিন থেকে শুরু হওয়া এ প্রতিযোগিতার ফলাফল বৃহস্পতিবার রাতে ঘোষণা করা হয়।

তিনি রাজধানীর যাত্রাবাড়ীর হাফেজ ক্বারী নেছার আহমদ আন নাছিরী পরিচালিত মারকাজুত তাহফিজ ইন্টারন্যাশনাল ক্যাডেট মাদ্রাসার ছাত্র।

হাফেজ ক্বারী নেছার আহমদ আন নাছিরী জানান, পুরস্কার স্বরূপ সে প্রায় ৬০ লাখ টাকা পেয়েছে।

শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজধানীর বিমানবন্দরে এসময় বিমানবন্দর এলাকায় তাকে একনজর দেখার জন্য জনতার ভিড় উপচে পড়ে।

মাত্র ১৩ বছর বয়সী এ হাফেজের গ্রামের বাড়ি কুমিল্লার দাউদকান্দি মালিগাঁও গ্রামে। তার বাবা আবু বকর সিদ্দিক স্থানীয় হাইস্কুলের প্রাক্তন শিক্ষক। বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া আবু বকর সিদ্দিক বর্তমানে অবসরকালীন জীবনে একটি কওমি মাদ্রাসায় শিক্ষকতা করছেন।

কিশোর হাফেজের গর্বিত পিতা আবু বকর সিদ্দিক তার অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে বলেন, আমার ছেলে দেশের জন্য যে সম্মান ও গৌরব বয়ে এনেছে তার জন্য আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের কাছে আমি শুকরিয়া আদায় করছি।

তিনি আরও জানান, ত্বরিকুল ইসলাম আলিয়া মাদ্রাসা থেকে ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষায় কৃতিত্বের সঙ্গে উত্তীর্ণ হয়ে বৃত্তি পেয়েছে। এবার সে জেডিসি পরীক্ষার্থী। তিনি দেশবাসীর কাছে তার ছেলের জন্য দোয়া চান।

তিনি জানান, তার চার মেয়ে ও ৩ ছেলে। ছেলেদের মধ্যে ত্বরিকুল সবার বড়। এর মধ্যে এক ছেলে ২২ পাড়া মুখস্ত করেছে। অন্য একজন এবারের এসএসসি পরীক্ষার্থী।

ত্বরিকুলের ছোট ভাই আরিফুল ইসলাম জানান, জাতীয়ভাবে অনেক পুরস্কার পাওয়ার পর ত্বরিকুলের স্বপ্ন ছিল আন্তর্জাতিকভাবে পুরস্কার পাওয়ার। সে স্বপ্ন আল্লাহ পূর্ণ করেছেন। এখন তার আরেকটি স্বপ্ন হল মিশরের আল আযহার ইউনিভার্সিটিতে পড়ার।

শুক্রবার বিকাল ৫টা ২০ মিনিটে তিনি বিমানবন্দর এলাকায় অবতরণ করার পর তার শিক্ষক, সহপাঠীরা তাকে সংবর্ধনা জানান। এ সময় বিমানবন্দর এলাকায় তাকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বিভিন্ন ব্যানার-ফেস্টুনে ছেয়ে যায়।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের দ্বীনি ও দাওয়াহ বিভাগের উপ-পরিচালক আনিছুর রহমান সরকার, মারকাজুত তাহফিজ ইন্টারন্যাশনাল ক্যাডেট মাদ্রাসার পরিচালক হাফেজ ক্বারী নেছার আহমদ আন নাছিরী, মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক হাফেজ রহমতউল্লাহ, হেমায়েত ইসলাম জনকল্যাণ পাঠাগারের সাধারণ সম্পাদক হাফেজ শামীম আহমেদসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

এগিয়ে যাচ্ছে লিডসাস

বেনজির আবরার, আমার ক্যাম্পাস: সমসাময়িক বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে শিক্ষাপ্রতিষ্টানে নিরাপত্তা একটি গুরুত্বপূর্ন বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে সাম্প্রতিক সময়ে। এসময়টিতেই বাংলাদেশী তরুণ উদ্দ্যোক্তা সাদিক আল সরকার ২০১৫ তে যেটি এনেছিলেন, সেই লিডসাস প্রকল্পের ব্যাবহার বেড়েই চলেছে। নাম শুনে যারা ভেবে বসলেন ছোট কোনো প্রকল্প তাদের জন্য থাকছে চমক! লিডসাস টিম দেশের বিভিন্ন নামকরা শিক্ষাপ্রতিষ্টানে দিচ্ছে তাদের সেবা,লিডসাসের প্রকল্পের আওতায় নিরাপদ থাকছে শিক্ষার্থীরা। এবিষয়ে কথা বলতে আমরা মুখোমুখি হই সাক্ষাৎকার পর্বে লিডসাসের চিফ অপারেটিং অফিসার সাঈদ সারোয়ার সাদীর সঙ্গে– সম্পূর্ণ সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন বেনজির আবরার। পাঠকের জন্য তা তুলে ধরা হলো।

প্রশ্ন – “লিডসাস” প্রতিষ্টার কারন??

সাঈদ সারোয়ার সাদী – “বাংলাদেশে বহুসংখ্যক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এখনো আধুনিকায়নের ছোঁয়া লাগেনি। এতে ছাত্রছাত্রীদের নিরাপত্তা যেমন বিঘ্নিত হচ্ছে, ঠিক তেমনি সেকেলে ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি বহাল থাকায় মূল্যবান সময়ের অপচয় হচ্ছে। তাই উন্নত বিশ্বের মতো এদেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে আধুনিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে রূপান্তর করার জন্য প্রয়োজন কার্যকরী পরিকল্পনা ও সময়োপযোগী উদ্যোগ।”একারণেই আমরা ব্যাতিক্রমী এ উদ্দ্যোগ নিয়ে এসেছি।

প্রশ্ন – প্রকল্পটি সম্পর্কে বলুন –

সাঈদ সারোয়ার সাদী – ২০১৫-এর প্রথম দিকের কথা, সাদিক লক্ষ করলেন, শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা বা স্কুল ডিজিটালাইজেশন নিয়ে বাংলাদেশের কোনো প্রতিষ্ঠান পূর্ণাঙ্গ কাজ করছে না। এরপর তিনি দেশে ও দেশের বাইরে বিভিন্ন আইটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কথা বলে জানতে পারেন যে, তিনি যে সার্ভিসগুলো চাচ্ছেন, তা কেউই একসঙ্গে দিচ্ছে না। পরবর্তীতে সাদিক নিজেই একটি পরিকল্পনা সাজান। কী কী সার্ভিস থাকলে কমপ্লিট ডিজিটাল স্কুল, তথা আধুনিক বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলা একটি স্কুল গড়া সম্ভব হয়, তা তিনি তালিকাভুক্ত করতে থাকেন।

‘একবিংশ শতাব্দীতে বাংলাদেশ ডিজিটাল যুগে প্রবেশ করলেও কিছু প্রতিবন্ধকতা আমাদের মাথা উঁচু করে দাঁড়ানোর পথে অন্তরায় হয়ে ওঠে। বিভিন্ন অপরাধ চক্রের সক্রিয়তা, ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অনিয়মিত থাকাসহ আরও নানা সমস্যা আমাদের সমাজে এখনো বিষফোঁড়ার মতোই অবস্থান করছে। একা কখনোই কারো পক্ষে এ সমস্যাগুলো মোকাবিলা করা সম্ভব না। তিনি জানান, তাই টিম লিডসাস একটি কমপ্লিট কনসেপ্ট নিয়ে এগিয়ে যেতে সম্মত হলো, যেখানে আধুনিক নিরাপত্তাব্যবস্থার পাশাপাশি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর সম্পূর্ণ আধুনিকায়ন সম্ভব হবে। এভাবেই মূলত লিডসাস লিমিটেডের যাত্রা শুরু।

প্রশ্ন -সেক্টরটির সম্ভাবনা কেমন দেখছেন?

সাঈদ সারোয়ার সাদী – ‘‘বাংলাদেশে শিক্ষাঙ্গনের নিরাপত্তার পাশাপাশি আধুনিকায়নের ধারণাটি নতুন না হলেও সঠিক পরিকল্পনা ও সময়োপযোগী উদ্যোগ গ্রহণে সচেষ্ট না হওয়ায় বহু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এখনো কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে ব্যর্থ। টিম লিডসাস ডিজিটালাইজেশনের সার্বিক সুবিধাগুলো প্রোগ্রাম কাউন্সেলিং ক্যাম্পেইন – এর মাধ্যমে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর পরিচালনা কমিটির ভেতর সচেতনতা তৈরি করতে কাজ করে যাচ্ছে।’’ যেহেতু, শিক্ষার্থীগণ দেশের ভবিষ্যতের কর্ণধার, সেহেতু তাদের নিরাপত্তাকে সর্বাধিক প্রাধান্য দেওয়া উচিৎ, সেক্টরটির বিকাশও ঘঠবে এক্ষেত্রে।

প্রশ্ন- সাড়া পাচ্ছেন কেমন?

সাঈদ সারোয়ার সাদী – ভিন্নধর্মী চিন্তা থেকে সফল হবার এক অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত লিডসাস। প্রতিষ্টানটির ভাগ্যে মিলেছেও স্বীকৃতি। ব্যাতিক্রমী চিন্তাভাবনাটির জন্য দেশের মূলধারার বেশকয়েকটি দৈনিক আমাদের সাক্ষাৎকার প্রকাশ করেছিলো লিডসাসের জন্মলগ্নে, বিশ্বাস করি যখন আমাদের কাজ বাড়বে তখন তার কাজের স্বীকৃতি আরো বাড়বে যখন প্রত্যেকটি শিক্ষাপ্রতিষ্টানে ছড়িয়ে যাবে “লিডসাস”।

প্রশ্ন- নিজেদের শক্তির জায়গাগুলো বলুন-

সাঈদ সারোয়ার সাদী – লিডসাসের গবেষনা টিমের জরিপে দেখা গেছে, অনেকেই স্ব-স্ব প্রতিষ্ঠানের আধুনিকায়নে আগ্রহী। আরও উঠে এসেছে যে, সঠিক পরিকল্পনা ও যথাযথ রক্ষণাবেক্ষণ ব্যবস্থা না থাকায় যৌথ মালিকানাধীন কিংবা বড় পরিসরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর আধুনিকায়ন দুরূহ হয়ে পড়েছে। এক্ষেত্রে সেসব প্রতিষ্ঠানগুলো ইচ্ছে করলেই টিম লিডসাসের বিশ্বমানের আইসিটি পরিসেবা গ্রহণ করতে পারে। গ্রাহকদের মতামতকে সর্বোচ্চ প্রাধান্য দিয়ে লিডসাসের বিশ্বমানের আইসিটি টিম ইন্টারনেট প্রটোকল সমর্থিত আধুনিক সিসি ক্যামেরা থেকে শুরু করে মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম, ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার, ওয়েব বেইজড মার্কেটিং, বায়োমেট্রিক অ্যাটেন্ডেন্স সিস্টেমসহ সব ধরনের আধুনিক আইসিটি পরিসেবা প্রদানে বদ্ধপরিকর।লিডসাস এর বিশ্বমানের আইসিটি সাপোট প্রসঙ্গে রাজধানী ঢাকাস্থ প্রসিদ্ধ বিদ্যাপীঠ ব্রিটিশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজ এর অধ্যক্ষ জনাব নাজির আহমদ বলেন- ”যথাযথ নিরাপত্তাব্যবস্থা সুনিশ্চিত করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে সম্পূণরূপে আধুনিকীকরণে টিম লিডসাসের উদ্যোগ নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়। একইসাথে একাধিক আইটি পরিসেবা গ্রহণ ও রক্ষণাবেক্ষণের ঝক্কিঝামেলা এখন আর নেই বললেই চলে।’ আর নারায়নগন্জের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে আধুনিক নিরাপত্তা পদ্ধতি ও সফটওয়্যারকেন্দ্রিক ব্যবস্থাপনা আমাদের দেশের জন্য অনেকটাই নতুন। অল্প কিছু সংখ্যক প্রতিষ্ঠান ব্যক্তিগত উদ্যোগে এসব পদ্ধতি ব্যবহার করছেন আর আমাদের প্রতিষ্টানটিও লিডসাসের মাধ্যমেই নিরাপত্তায় ঢাকা বলে জানালেন নারায়ণগঞ্জের অন্যতম স্কুল চেরিশ বিদ্যানিকেতনের অধ্যক্ষ মোরশেদা হাসিনা।

প্রশ্ন – স্বপ্নের রেখা কতদূর বিস্তৃত-

সাঈদ সারোয়ার সাদী- সবচেয়ে মজার বিষয় হচ্ছে, লিডসাস নিরাপত্তার পাশাপাশি রক্ষনাবেক্ষনের জন্যও আলাদা চিন্তা নিয়ে এগুচ্ছে।টিম লিডসাসের অন্যতম লক্ষ্য হলো—যথাযথ প্রযুক্তি সহায়তা প্রদান করে উন্নত বিশ্বের মতো এদেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে আধুনিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানগুলোতে উচ্চমানের আধুনিক নিরাপত্তা বলয় তৈরি করা। বাংলাদেশের সর্বস্তরে প্রযুক্তিগত সুবিধা পৌঁছে দিয়ে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে দেশবাসীর পাশে থাকা। আপাতত ছোট লক্ষ্যে এগোচ্ছি, দোয়া চাই দেশবাসীর কাছে।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে অনার্সে ভর্তি শুরু ২৪ আগস্ট

আমার ক্যাম্পাস ডেস্ক: জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজসমূহে আগামী ২৪ আগস্ট থেকে অনার্স ১ম বর্ষের ভর্তি কার্যক্রম শুরু হবে। ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের ক্লাস শুরু হবে ১৫ অক্টোবর।

সোমবার উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন অর রশিদের সভাপতিত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি কমিটির সাধারণ এক সভায় এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

সভায় জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজগুলোতে ২০১৭-২০১৮ শিক্ষাবর্ষের ১ম বর্ষ সম্মান ভর্তি কার্যক্রম শুরু, আসন সংখ্যা, ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের ক্লাস শুরু বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়।

সভায় উপ-উপাচার্য চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মো. মশিউর রহমান, ট্রেজারার অধ্যাপক মো. নোমান উর রশীদ, সকল ডিন, রেজিস্ট্রার, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক, পরিচালক আইসিটি প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন ।

হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশি ছাত্রের বিশ্ব জয়

আমার ক্যাম্পাস রিপোর্ট: দুবাইয়ে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় ১০৩ জন প্রতিযোগির মধ্যে ১ম স্থান অধিকার করেছে বাংলাদেশের কৃতি শিক্ষার্থী হাফেজ তরিকুল ইসলাম।

তার বয়স ১৩ বছর। সে মারকাযুত তাহফিজ ইন্টার ন্যাশনাল মাদ্রাসা যাত্রবাড়ী থেকে এ প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহন করে।
প্রতি বছরই আন্তর্জাতিক ভাবে বিভিন্ন দেশের হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের ছাত্ররা অংশ গ্রহন করে থাকে। এবং অনেক সময় ভালো ফলাফল করে থাকে। তারই ধারাবাহিকতায় এবার প্রথম স্থান অধিকার করলো এই কৃতি শিক্ষার্থী।

দুবাই প্রশাসনের শীর্ষ ব্যক্তিত্ব শেখ আহমদ বিন মোহাম্মদ বিন রশিদ আল মাকতুম দুবাই সংস্কৃতি ও বিজ্ঞান সমিতির অডিটোরিয়ামে জাকজমকপূর্ণ এক অনুষ্ঠানে তরিকুল ইসলামসহ অন্যান্য বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন। এ অনুষ্ঠানে সৌদি আরবের বাদশাহ সালমানকে এ বছরে শ্রেষ্ঠ ইসলামী ব্যক্তিত্ব হিসেবেও সম্মাননা দেয়া হয়, বাদশাহর প্রতিনিধি সেটি গ্রহণ করেন। এ দিন এ প্রতিযোগীতা উপভোগ করতে দেশটির গণমান্য ব্যক্তিরা মিলনায়তনে উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশের বেশ কয়েকটি জাতীয় প্রতিযোগিতায় শীর্ষস্থান অর্জনের পর এ বাংলাদেশি কিশোর দুবাইয়ে এ কৃতিত্ব দেখালেন। তার পরের স্থানে সেরা খেতাব অর্জন করেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিযোগী হুজাইফা সিদ্দিকী, তিনি পান দুই লাখ দিরহাম। সেই সাথে তিনি ‘বেস্ট ভয়েস’ ক্যাটাগরিতে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেন।

তৃতীয় স্থান অধিকার করেন যৌথভাবে গাম্বিয়ার মোডউই জবি এবং সৌদি আরবের আবদুল আজিজ আল ওবায়দান এবং তিউনিশিয়ার রশিদ আলানি। তারা পুরস্কারের দেড় লাখ দিরহাম ভাগাভাগি করে নেন। এ প্রতিযোগিতায় দশম স্থান পর্যন্ত প্রতিযোগীদের পুরস্কৃত করা হয়েছে।

পুরস্কার নিচ্ছেন বিজয়ী শিক্ষার্থী হাফেজ তরিকুল ইসলাম।

ইতিমধ্যে এই খবরটি ফেজবুকে বেশ আলোচিত হচ্ছে।

তুহিন মাজহার নামে এক ফেইসবুক ইউজার লিখেছেন
, ’সবাই জানুক আরেকটি বিজয়ের গল্প! ৮ টি দলের সাথে লড়ে সেমিতে হেরেছে বাংলাদেশ 😰 কিন্তু আরেকটি সুখবর যে আছে! ১০৫ টি দেশের সাথে কম্পিটিশন করে যে আজ বিজয় চিনিয়ে আনলো আমাদের গর্ব মাত্র ১৫ বছর বয়সী হাফিয তরিকুল ইসলাম। ক্ষুদে হাফিয তরিকুল ইসলাম দুবাইয়ে সদ্য অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতায় ১ম স্থান লাভ করে। আলহামদুলিল্লাহ্‌ 💜 অভিনন্দন অবিরাম 💜 একটি শৈল্পিক সভ্যতা নির্মাণের শিল্পী এরা। এতো বড় অর্জন। তবু নেই কোনো রাষ্ট্রীয় সংবর্ধণা 😰 তবুও এরাও আমাদের গর্ব। দারুণভাবে আনন্দিত আমরা।’

শেখ কারি মোহাম্মদউল্লাহ নামে একজন লিখেছেন, আবারো বাংলাদেশের বিশ্ব জয়, বাংলাদেশ ১ম স্হান অধিকার করেছে,,,, খাল্লি বাল্লি ক্রিকেট, কোরআনেতো প্রথম হয়েছে বাংলাদেশ?? ।

অনুষ্ঠানের সম্পূর্ণ ভিডিও দেখুন: https://youtu.be/NW_j7fDxIsA?t=37

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সমিতির কমিটি গঠন

আমার ক্যাম্পাস ডেস্ক: বাংলাদেশ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সমিতির ২০১৭-২০১৯ সালের জন্য কার্যনির্বাহী পরিষদের নির্বাচন গত শনিবার রাজধানীর বনানীতে অবস্থিত সমিতির নিজস্ব ভবনে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান হিসেবে পুনর্নির্বাচিত হয়েছেন শেখ কবির হোসেন। কার্যনির্বাহী পরিষদের অন্য সদস্যরা হলেন অধ্যাপক আবদুল মান্নান চৌধুরী, অধ্যাপক শফিক আহমেদ সিদ্দিক, বেনজীর আহমেদ, কে বি এম মইন উদ্দিন চিশতি, কাজী আনিস আহমেদ, মো. সবুর খান, কাজী রফিকুল আলম, আবু ইউসুফ মো. আব্দুল্লাহ, এ কে এম এনামুল হক, এ কে এম নুরুল ফজল, আলাউদ্দিন আহমেদ চৌধুরী (নাসিম), এম এ মোমিন, সাদাফ সাজ সিদ্দিক, ইসতিয়াক আবেদীন, মো. রেজাউল করিম, মো. খলিলুর রহমান, কে এম আখতারুজ্জামান, চৌধুরী নাফিজ শরাফত। বিজ্ঞপ্তি

ইবির ডায়েরি থেকে জিয়ার নাম বাদ, ছাত্রলীগের আনন্দ মিছিল

আমার ক্যাম্পাস, ইবি: ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) প্রকাশিত ডায়েরি থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের নাম বাদ দেয়ায় আনন্দ মিছিল করেছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

বুধবার বেলা ১২টায় ক্যাম্পাসে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহিনুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক জুয়েল রানা হালিমের নেতৃত্বে এ আনন্দ মিছিল করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ছাত্রলীগের টেন্ট থেকে আনন্দ মিছিলটি বের হয়ে ক্যাম্পাসের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে একই স্থানে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে মিলিত হয়।

সমাবেশে শাহিনুর রহমান বলেন, ‘জিয়াউর রহমান ছিল পাকিস্তানের দালাল। তার নাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ডায়েরিতে থাকতে পারে না।’

বক্তৃতাকালে তিনি ক্যাম্পাসে ছাত্রদল নেতাকর্মীদের বিশৃঙ্খলা করতে দেখা মাত্রই প্রতিহত করতেও নেতাকর্মীদের নির্দেশ দেন।

মিছিল ও সমাবেশে সালাহউদ্দিন আহমেদ সজল, আলমগীর হোসেন আলো, তৌকির মাহফুজ মাসুদ, ফয়সাল, সিদ্দিকী আরাফাতসহ নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

বিটেকে নতুন প্রিন্সিপাল ইঞ্জি. মহিবুল ইসলাম

আমার ক্যাম্পাস,বিটেক: টাঙ্গাইলের বঙ্গবন্ধু টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে (বিটেক) নতুন প্রিন্সিপাল (ভারপ্রাপ্ত) হিসেবে যোগদান করেছেন ইঞ্জি. মো. মহিবুল ইসলাম। তিনি সাবেক প্রিন্সিপাল ড. ইঞ্জি. মো. আতাউল ইসলামের স্থলাভিষিক্ত হলেন।

বৃহস্পতিবার (১৫ জুন) বিটেকের তৃতীয় প্রিন্সিপাল হিসেবে তাকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ। এ সময় সদ্যবিদায়ী প্রিন্সিপাল ড. ইঞ্জি. মো. আতাউল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন। তাকে শিক্ষকদের পক্ থেকে বিদায়ী শুভেচ্ছা জানানো হয়।

কর্মজীবনে মহিবুল ইসলাম বরিশাল শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে চিফ ইনস্ট্রাক্টর হিসেবে, চট্টগ্রাম টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, টাঙ্গাইল টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট, দিনাজপুর টেক্সটাইল ইনস্টিটিউটে প্রিন্সিপাল হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়া তিনি বস্ত্র পরিদফতরে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন।

তিনি বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয় (পূর্বনাম- কলেজ অব টেক্সটাইল টেকনোলজি) থেকে কৃতিত্বের সঙ্গে শিক্ষাগ্রহণ শেষ করে ১৯৮৭ সালে কর্মজীবনে প্রবেশ করেন। তার জন্মস্থান বরিশালে।

বিটেকে আসার আগে তিনি চট্টগ্রাম টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে প্রিন্সিপাল হিসেবে কর্মরত ছিলেন। নতুন দায়িত্ব পালনে ইঞ্জি. মহিবুল ইসলাম সবার সহযোগিতা কামনা করেছেন।

সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মাঝে ’ঘাসফুলে’র ঈদ উপহার

আমার ক্যাম্পাস, ঢাবি: বাবা-মায়ের হাত ধরে অভিজাত শপিংমলে ঘুরে নিজের জন্য ঈদ বস্ত্র পছন্দ করা হয়নি তাদের কখনো। এমন সুযোগ তাদের কাছে মিছে মনে হয়। কারণ তিনবেলা যেখানে খাবার জুটে না সেখানে বস্ত্রেরতো প্রশ্নই আসে না। কিন্তু ইচ্ছে কিংবা চাহিদাতো তাদেরও থাকে। শুধু বাস্তবে রূপ নেয় না সে ইচ্ছের।

এমনই সুবিধাবঞ্চিত ও দুস্থ শিশুদের ঈদবস্ত্র উপহার দিয়েছে ঘাসফুল নামে একটি সামাজিক সংগঠন। লক্ষ্য অন্য সবার মতো ঈদের খুশিতে হাসুক তারাও।

বৃহস্পতিবার ঘাসফুল আয়োজিত ‘ঈদ উৎসব-২০১৭-তে প্রধান অতিথি হিসেবে সুবিধাবঞ্চিত ও দুস্থ শিশুদের মধ্যে বস্ত্র বিতরণ করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। ঢাবির ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের (টিএসসি) ক্যাফেটেরিয়ায় এই বস্ত্র বিতরণ করা হয়।

এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন রেজিস্ট্রার এনামুজ্জামান, টিএসসি পরিচালক মহিউজ্জামান ময়না ও ঘাসফুলের সদস্যরা।

উপাচার্য ঈদ উপলক্ষে ঘাসফুলের এ আয়োজনের প্রশংসা করেন। বলেন, সমাজের প্রতিটি ক্ষেত্রে তরুণদের এসব কাজের মধ্য দিয়ে এগিয়ে আসেত হবে। দাঁড়াতে হবে সব শ্রেণি-পেশার মানুষের পাশে।

image missing image missing